অনার্স এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে হোয়াটস্যাপ এ যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।
ডিগ্রী দ্বিতীয় বর্ষ পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801925492441
অনার্স চতুর্থ এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের রকেট স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে দ্রুত যোগাযোগ করুন। Whatsapp +8801925492441
Earn Free BTC

Make Money Online
অনার্স চতুর্থ বর্ষের সকল বিভাগের স্পেশাল সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। হোয়াটস্যাপ +8801925492441
Welcome To TopSuggestion

কেন্দ্রীয় প্রবণতা কাকে বলে

কেন্দ্রীয় প্রবণতা কাকে বলে

 

ভূমিকাঃ ইতোমধ্যেই আপনারা পরিসংখ্যানের ধারণা এবং উপাত্ত উপস্থাপনের বিভিন্ন কৌশল সম্পর্কে বিস্তারিত জেনেছেন। এ ইউনিটে আপনি কেন্দ্রীয় প্রবণতা এবং এর পরিমাপ সম্পর্কে ধারণা লাভ করবেন। তথ্যবিশ্বের উপাদানের কোন বৈশিষ্ট্যের জন্য নমুনা চয়ন করার পর মানগুলোকে বিশেষভাবে লক্ষ্য করলে দেখবেন যে, এদের একটি সংখ্যার খুব কাছাকাছি থাকার প্রবণতা আছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্রীয় প্রবণতা বলে। এরূপক্ষেত্রে যে মানের খুব নিকটবর্তী অন্যান্য মানগুলো বিদ্যমান থাকে তাকে কেন্দ্রীয় মান বলে। কেন্দ্রীয় প্রবণতার প্রধান পরিমাপকগুলো হলো গড়।

কেন্দ্রীয় প্রবণতা: কেন্দ্রীয় প্রবণতার অর্থ হল কেন্দ্রের দিকে যাওয়ার ঝোক। একগুচ্ছ স্কোরে পৃথক মানের স্কোর থাকলে তাদের ভরকেন্দ্র যাওয়ার ঝোঁক বা প্রবণতা থাকে। এটাই হলো কেন্দ্রীয় প্রবণতা। অর্থাৎ যে সমস্ত বন্টনের প্রতিনিধি স্বরূপ কাজ করে। কেন্দ্রীয় প্রবণতা বা কেন্দ্রীয় অবস্থানের সূচক একটি বন্টনের বিভিন্ন স্কোরের মধ্যে পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও তাদের মাঝামাঝি যাওয়ার একটি প্রবণতা থাকে। 

কেন্দ্রীয় প্রবণতা পরিসংখ্যানের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। কেন্দ্রীয় প্রবণতাকে সংজ্ঞায়িত করার পূর্বে আসুন এ বিষয়ে একটি উদাহরণ নিয়ে আলোচনা করি। মনে করুন আপনি কোন একটি এলাকায় চাষকৃত বিভিন্ন কৃষকের জমিতে ইজ৩ ধানের ফলন কত তা সংগ্রহ করলেন। এখন যদি আপনাকে কেহ প্রশ্ন করে যে, ঐ এলাকায় ইজ৩ ধানের গড় ফলন কত? তখন আপনি নিশ্চয় এমন একটি সংখ্যা বলবেন ঐ এলাকায় চাষকৃত সকল কৃষকের জমিতে ইজ৩ এর ফলনের কাছাকাছি একটি মান হবে। অর্থাৎ ঐ নির্দিষ্ট মানটি ঐ এলাকায় সকল কৃষকের জমিতে ইজ৩ ধানের ফলনের প্রতিনিধিত্ব করছে যার মাধ্যমে ঐ এলাকায় ইজ৩ ধানের ফলন সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে সকল কৃষকের জমিতে প্রাপ্ত ফসল সংখ্যা যারা একটি নির্দিষ্ট মানের দিকে পুঞ্জিভূত হবার প্রবণতা দেখায় তাই হলো কেন্দ্রীয় প্রবণতা। আমাদের জীবনযাত্রা, পরিকল্পনা গ্রহণ ইত্যাদি কাজে আমরা কেন্দ্রীয় প্রবণতা ব্যবহার করে থাকি। যেমন- গড় ফলন, গড় বয়স, গড় আয় ইত্যাদি। এসকল তথ্যসমূহের যথার্থ বিশ্লেষণের জন্য সংখ্যাগত বিশ্লেষণ জানা প্রয়োজন। কেননা, সংখ্যাগত বিশ্লেষণ জানতে পারলে আপনি তথ্যরাশিকে একটি প্রতিনিধিত্বমূলক সংখ্যা দ্বারা প্রকাশ করতে সক্ষম হবেন। প্রতিনিধিত্বশীল সংখ্যা বের করতে পারলে বিভিন্ন তথ্যসারির তুলনামূলক আলোচনা করা এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ সম্ভব হবে। 

উপসংহার: কেন্দ্রীয় প্রবণতা পরিসংখ্যানের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। আদর্শ কেন্দ্রীয় প্রবণতার
পরিমাপকের যেসব বৈশিষ্ট্য থাকা প্রয়োজন তা হচ্ছে - এটি খুব স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করা যায়, এটি
সহজে বুঝা এবং হিসেব করা যায়, এটি সবগুলো পর্যবেক্ষণের ওপর ভিত্তি করে গঠিত হয়, নমুনার
মানসমূহের হ্রাস-বৃদ্ধির দ্বারা এটি প্রভাবিত হয়। কেন্দ্রীয় প্রবণতা পরিমাপের জন্য কতকগুলো বিশেষ
পদ্ধতি রয়েছে। পদ্ধতিগুলো হলো- গড়, মধ্যক এবং প্রচুরক।
Share This

0 Response to "কেন্দ্রীয় প্রবণতা কাকে বলে"

Post a Comment

Popular posts