অনার্স এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে হোয়াটস্যাপ এ যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।
অনার্স প্রথম এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের নভেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরু হবে!! কাজেই যাদের ৯৯% কমন রকেট স্পেশাল সাজেশন লাগবে আজই যোগাযোগ করুন।।
Earn Free BTC

Make Money Online
অনার্স চতুর্থ বর্ষের সকল বিভাগের স্পেশাল সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। হোয়াটস্যাপ +8801925492441
Welcome To TopSuggestion

ব্যক্তি সমাজকর্ম কি ?

 

ব্যক্তি সমাজকর্ম কি

ভূমিকা: আধুনিকযুগে সমাজকর্ম একটি সুপরিকল্পিত, সুশৃঙ্খল ও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। সমাজকর্ম অনুশীলনের ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা থেকে অর্জিত জ্ঞান বাস্তব ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়। সমাজকর্মের মূলভিত্তি হচ্ছে বিজ্ঞান ও কলা ভিত্তিক জ্ঞান, মানব হিতৈষী দর্শন, মানবিক সম্পর্ক, পেশাধারি মূল্যবোধ ও দক্ষতা। সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তির সমস্যা সমাধানে সমাজকর্মীকে ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির বিভিন্ন সমস্যা ও প্রয়োজনের প্রেক্ষিতে সমাজকর্ম সম্পাদনে যে ভিন্ন ভিন্ন উপায় অবলম্বন করা হয় তা হচ্ছে ব্যক্তি সমাজকর্ম, দল সমাজকর্ম ও সমষ্টি সমাজকর্ম। যে গুলোকে একত্রে মৌলিক পদ্ধতি বলে। আবার এসব মৌলিক পদ্ধতিকে সহায়তা করে সামাজিক গবেষণা, সামাজিক প্রশাসন ও সামাজিক কার্যক্রম নামক তিনটি সহায়ক পদ্ধতি।  ব্যক্তি সমাজকর্মের ধারনা ও সংজ্ঞাঃ ব্যক্তি সমাজকর্ম হচ্ছে সমাজকর্মের অন্যতম মৌলিক পদ্ধতি। এই পদ্ধতি মাধ্যমে ব্যক্তির সমস্যার সমাধান দেওয়া হয়। সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তিকে কেন্দ্রকরেই এই পদ্ধতি গড়ে ওঠে। সমাজকর্মের পদ্ধতি গুলোর মধ্যে ব্যক্তি সমাজকর্ম পদ্ধতিই সবচেয়ে প্রাচীন পদ্ধতি।

সংজ্ঞাঃ  ব্যাক্তির দাইত্ব ও কর্তব্য হিসেবে সমাজে যেসব কাজকর্ম করে থাকে যেমন অন্যকের স্বাধীনতা রক্ষা করা। ব্যক্তি সমাজকর্ম: ব্যক্তি কেন্দ্রিক সমস্যাকে কেন্দ্র করে আবর্তিত সমাজকর্মের পদ্ধতিকে ব্যক্তি সমাজকর্ম বলে। সমাজকর্ম পদ্ধতি: যেসব পদ্ধতি বা কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে সমাজকর্ম বিষয়ক জ্ঞান,দক্ষতা ও নীতিমালা বাস্তবক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয় তাকে সমাজকর্ম পদ্ধতি বলে। ব্যক্তি সমাজকর্ম হচ্ছে পেশাদার সমাজকর্মের এমন এক মৌলিক পদ্ধতি, যার মাধ্যমে সমস্যা গ্রস্তব্যক্তিকে এমনভাবে সহায়তা করা হয় যাতে সে তার সুপ্ত প্রতিভা ও সম্পর্কের বিকাশ ঘটিয়ে নিজের সমস্যা মোকাবেলা করে স্বাভাবিক ভূমিকা পালনে সক্ষমহয়। লিটন বি. সুইফটের মতে, “ব্যক্তি সমাজকর্ম হচ্ছে সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তির বুদ্ধিমত্তা ও অন্তর সত্তাকে বিকশিত করার এমন এক কৌশল যা তাকে তার পরিবেশের সমস্যাবলী মোকাবেলায় সাহায্য করে।” এইচ. এইচ পার্লম্যানের ভাষায় “ব্যক্তি সমাজকর্ম পদ্ধতি মানবকল্যাণ সংস্থাকে সমূহ কর্তৃক পরিচালিত এমন এক প্রক্রিয়া, যা কোন ব্যক্তির সামাজিক ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে উদ্ভুত সমস্যাবলী কার্যকর ভাবে মোকাবেলায় সহায়তা করে।”  উলে−খিত সংজ্ঞাগুলোর প্রেক্ষিতে বলা যায়, ব্যক্তি সমাজকর্ম পদ্ধতি বলতে এমন করে পদ্ধতিকে বুঝায় যার মাধ্যমে সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তির সুপ্ত ক্ষমতার বিকাশ সাধন করে এমনভাবে সমস্যার সমাধান করে যাতে উত্তম সামঞ্জস্য ও সুষ্ঠু সামাজিক ভূমিকা পালনে সক্ষম হয়।

উপসংহার: আধুনিক জটিল ও পরিবর্তনশীল সমাজব্যবস্থায় বহুমুখী সমস্যা সমাধানের অত্যন্ত সুশৃঙ্খল ও বিজ্ঞানভিত্তিক স্বীকৃত সাহায্যপ্রক্রিয়া হলো সমাজকর্ম। সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির সমস্যা সমাধানে নিরপেক্ষ কিছু কর্মপন্থা বা কৌশল প্রয়োগ করা হয়ে থাকে যা সমাজকর্মের পদ্ধতি হিসেবে অভিহিত। আর এই বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি নির্ভরতার কারণে সমাজকর্ম আজ সারাবিশ্বে একটি স্বীকৃত পেশা।

Share This

0 Response to "ব্যক্তি সমাজকর্ম কি ?"

Post a Comment

Popular posts