ডিগ্রী ২য় বর্ষ ২০২১ ইসলামিক স্টাডিজ ৪র্থ পত্র স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে নিতে চাইলে ম্যাসেজ করুন।
Welcome To TopSuggestion

ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা

ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা


বুদ্ধিমান প্রাণী হিসেবে মানুষের যাত্রা যেদিন থেকে, সেদিন থেকেই মানুষ তার পারিপার্শ্বিকতা ও পরিবেশকে জানার চেষ্টা করেছে। সম্ভবত সেদিন থেকেই ভূগোলের যাত্রা শুরু। জ্ঞান-বিজ্ঞানের শাখাসমূহের মধ্যে ভূগোল শাস্ত্র সর্বাপেক্ষা প্রাচীন। ভূগোল বাস্তবসম্মত একটি প্রায়োগিক বিজ্ঞান। ভূগোলের সাথে পরিবেশ শিক্ষা যোগ হয়ে এর গুরুত্ব বহুগুণ বৃদ্ধি করেছে। এ 


ভূগোল:

ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা


ভূগোল- গ্রিক শব্দ Geographia থেকে ইংরেজি Geography শব্দটির উৎপত্তি। এবড়মৎধঢ়যরধ শব্দের প্রথমটি ‘এবড়’ যার অর্থ পৃথিবী এবং দ্বিতীয়টি ‘মৎধঢ়যরধ’ অর্থাৎ বর্ণনা। সাধারণভাবে অতীতের ভূগোলবিদগণ ভূগোল বলতে পৃথিবী সম্পর্কিত বর্ণনাকে বুঝতেন। প্রাচীন মিশরীয় পণ্ডিত ইরাটসথেনিস ভূগোল শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেন। উনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত ভূগোল বিষয়টির স্বতন্ত্র কোন মর্যাদা ছিলনা। এ বিষয়টিকে ভূতত্ত্ববিদ্যার অংশ হিসেবে গণ্য করা হত। এ প্রসংগে ইংল্যান্ডের খ্যাতনামা ভূতত্ত্ববিদ স্যার আরকিবোল্ড ১৮৯৫ খ্রিষ্টাব্দে মন্তব্য করেছেন,æIn its true sense Geography is a part of Geology”.

কালের বিবর্তনে ভূগোলের বিষয়ব সম্প্রসারিত হতে থাকে। ফলে ভূগোলের সংজ্ঞা বিভিন্নভাবে বিভিন্ন ভূগোলবিদ দিয়েছেন। একক ব্যক্তির দেয়া একটি ভূগোলের সংজ্ঞা থেকে ভূগোল কী তা বুঝা যায় না। তাই একাধিক ব্যক্তির দেয়া ভূগোলের সংজ্ঞা থেকে ভূগোল কী তা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। ইরাটসথেনিসকে আধুনিক ভূগোলের জনক বলা হয়।


নিচে কয়েকজন খ্যাতনামা ভূগোলবিদের দেয়া ভূগোলের সংজ্ঞাউল্লেখ করা হলো

১. অধ্যাপক ফ্রাংক ডিবেনহাম বলেন- “জ্ঞানের যে শাখা বণ্টন সংক্রান্ত তথ্যের ব্যাখ্যা দান করে এবং প্রাকৃতিক পরিবেশের সাথে মানুষের সম্পর্ক নির্ণয় এবং মানবিক ও প্রাকৃতিক উপাদানের পারস্পরিক কার্যকরণের ব্যাখ্যা প্রদান করে তা-ই হলো ভূগোল।”

২. অধ্যাপক চেম্বারস- এর মতে, “ভূগোল হলো পৃথিবী পৃষ্ঠ ও এর মধ্যে বসবাসকারী অধিবাসীদের বর্ণনামূলক বিবর্তন।”

৩. কাজী ফারুকীও এএসআর মজুমদার বলেন- “ভূগোল হলো এমন একটি গতিশীল বিজ্ঞান যা মানুষ ও পরিবেশের বর্ণনা দেয় এবং এদের পারস্পরিক সম্পর্ক বিশ্লেষণপূর্বক একে অন্যের উপর প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করে।”

৪. প্রখ্যাত জার্মান ভূগোলবিদ কার্ল রিটার বলেন- “পৃথিবী ও মানব জাতির পারস্পরিক সম্পর্ক নির্ণয় করে ভূগোল।”

৫. অধ্যাপক ডাডলি স্ট্যাম্প বলেন, “ভূগোল হচ্ছে পৃথিবী ও তার অধিবাসীদের বিবরণ।” 

৬. অধ্যাপক ম্যাকিন্ডার-এর মতে, “ভূগোলের কাজ হলো পৃথিবীর বিভিন্ন পরিবেশের সাথে মানুষের জীবনধারার সম্পর্ক নির্ণয় করা।”

৭. অধ্যাপক স্টল-এর মতে, “ভূগোল হচ্ছে উদ্যোগের বিজ্ঞান, কারণ এর মাধ্যমেই আমরা পৃথিবীর সংগে সম্পর্ক করি। আর এ সম্পর্ক নির্ণয় ব্যতিরেকে প্রগতি পিছিয়ে পড়তে বাধ্য, কারণ ভূগোলের জ্ঞান ছাড়া রাজ‣নতিক, সামাজিক, অর্থ‣নতিক উন্নয়ন সম্ভব নয়।”

৮. অধ্যাপক জেমস ফেয়ারগ্রিভ বলেন, “ভূগোলের কাজ হলো ভাবী নাগরিককে বিশ্ব রঙ্গমঞ্চের সর্ম্পকে সঠিক ধারণা অর্জনের জন্য শিক্ষা দেয়া যা বিশ্বের সর্বত্র যে সকল সামাজিক ও রাজ‣নতিক সমস্যাদি রয়েছে সে সম্পর্কে সুষ্ঠুভাবে চিন্তা করতে সাহায্য করে।” এছাড়া বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক প্রকাশিত ভূগোল ও পরিবেশ বিষয়ক পাঠ্যপুস্তকে প্রদত্ত

আরো কিছু প্রখ্যাত ভূগোলবিদের দেয়া সংজ্ঞা নিচে উল্লেখ করা হলো

১. অধ্যাপক ই এ ম্যাকনি বলেন, “মানুষের আবাসভূমি হিসেবে পৃথিবীর আলোচনাকে ভূগোল বলে।”

২. রিচার্ড হার্টশোন বলেন, “পৃথিবীপৃষ্ঠের পরিবর্তনশীল ক্সবশিষ্ট্যের যথাযথ যুক্তিসংগত ও সুবিধাগ্রস্ত বিবরণের সংশ্লিষ্ট বিষয় হলো ভূগোল।”

৩. আলেকজেন্ডার ফন হামবোল্ট বলেন, “ভূগোল হলো প্রকৃতির সঙ্গে সর্ম্পকিত বিজ্ঞান, প্রকৃতিতে যা কিছু আছে তার বর্ণনা ও আলোচনা এর অন্তর্গত।” সর্বশেষ (১৯৬৫) খ্রিষ্টাব্দে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসির বিজ্ঞান একাডেমি ভূগোলের একটি সংজ্ঞা দিয়েছে। এটি হলো

“পৃথিবী পৃষ্ঠে প্রাকৃতিক পরিবেশের উপদানগুলো কীভাবে সংগঠিত এবং এর প্রাকৃতিক বিষয় বা অবয়বের সঙ্গে মানুষ নিজেকে কীভাবে বিন্যস্ত করে তার ব্যাখ্যা দান করে ভূগোল।”


পরিবেশ:
ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা


পরিবেশ এর ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো ঊহারৎড়হসবহঃ যা দুটি ফরাসী শব্দ হতে উৎপত্তি হয়েছে। শব্দ দুটি হলো Environment এবং Ment যার অর্থ যথাক্রমে ‘চারপার্শ্ব’ এবং ‘ক্রিয়ারত’। অতএব পরিবেশ বা Enviroenar বলতে আমরা বুঝি পৃথিবীর যে  আমরা বসবাস করি তার চারপার্শ্বে বিভিন্ন ক্সজবিক, ভে․তিক ও রাসায়নিক ক্রিয়াশীল রয়েছে যা আমাদের জীবনকে বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণভাবে সদা প্রভাবিত করে। অতএব আমাদের চারপাশে যে সব ব¯‧
ক্রিয়াশীল রয়েছে তাদেরকে সমষ্টিগতভাবে পরিবেশ বলা যেতে পারে।
প্রখ্যাত পরিবেশ বিজ্ঞানী Mc Naughton & Wolf এর মতে, “পরিবেশ জীবের বৃদ্ধি, বিকাশ, আয়ুল ও বংশ বিস্তার ঘটাতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।”
The environment is a system consisting of natural and artificial elements that are interrelated and which are modified by human action. It’s the environment that affects the way of life of the society, including natural, social and cultural values that exist in a place and time.-Didactic Encyclopedia

ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা
ভূগোল ও পরিবেশ শিক্ষা:
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রণীত জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এর আলোকে ২০১১ খ্রিষ্টাব্দে মাধ্যমিক স্তরের ভূগোল বিষয়ের শিক্ষাক্রম পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও উন্নয়নের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। কারণ বিশ্বে জ্ঞান-বিজ্ঞানের অনেক প্রসার ঘটেছে এবং ভূগোল বিষয়ের জ্ঞান ভান্ডারের বহু পরিবর্তন এসেছে। ভূগোল এখন শুধু দেশ, রাজধানী, পাহাড়, পর্বত, নদী, সাগর আমদানী-রপ্তানী, শিল্প ও খনিজ বিষয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, এর পরিধি এখন আগের চেয়ে অনেক ব্যাপক হয়েছে। যেমনমানুষ ও তার পরিবেশ, অর্থ‣নতিক কর্মকাণ্ড, মানুষ কর্তৃক পরিবেশের পরিবর্তন বা পরিবেশের কারণে মানুষের জীবন ধারার পরিবর্তন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রভৃতি ভূগোল বিষয়ের অন্তর্গত। এ কারণে জ্ঞানার্জনের জন্য ভূগোল বিষয়ের শিক্ষাক্রম পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। যে জন্য ভূগোল বিষয়টির নাম পরিবর্তন করে ভূগোল ও পরিবেশ করা হয়েছে। বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ানোর জন্য শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে ভূগোল ও পরিবেশ শিক্ষা নামে একটি
স্বতন্ত্র বিষয় চালু করা হয়েছে। 

ভূগোল ও পরিবেশ শিক্ষা শিক্ষণ:
ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা
ভূগোল ও পরিবেশ শিক্ষা শিক্ষণ হলো- ভূগোলের বিষয় কীভাবে পাঠদান করা হবে সে সম্পর্কিত কলাকে․শল। প্রত্যেকটি পাঠদানের নিজস্ব কিছু ধরন রয়েছে যা ঐবিষয়টি বুঝতে সহায়তা
করে। ভূগোল ও পরিবেশ বিষয়টি অন্য বিষয় থেকে আলাদা। একটি প্রায়োগিক বিষয় হিসেবে পর্যবেক্ষণ পদ্ধতি, প্রদর্শন পদ্ধতি, প্রকল্পপদ্ধতি, শিক্ষামূলক ভ্রমণ পদ্ধতি ভূগোল ও পরিবেশ শিক্ষায় খুবই কার্যকর। শিক্ষার্থীদের সক্রিয় রাখতে এবং তাদের পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে শিক্ষামূলক ভ্রমণ অত্যন্ত কার্যকর।
ভূগোলের পরিধি
ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা

জ্ঞান-বিজ্ঞানের অগ্রগতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিকাশ, নতুন নতুন উদ্ভাবন, চিন্তা-ধারণার বিকাশ, সমাজের মূল্যবোধের পরিবর্তন, সমাজনীতি, রাজনীতি, শিক্ষা  নতুন সংযোজন ইত্যাদি ভূগোলের পরিধিকে অনেক বিস্তৃত করেছে। ভূমিরূপবিদ্যা, আবহাওয়াবিদ্যা, সমুদ্রবিদ্যা, অর্থনীতি, রাজনীতি, চিকিৎসাবিদ্যা প্রত্নতত্ত্ববিদ্যা ইত্যাদি ভূগোল বিষয়ের অন্তর্গত
হয়েছে। ফলে ভূগোলের বিষয় পরিধি বৃদ্ধি পেয়েছে। জনসংখ্যা, দুর্যোগ ও দুর্যোগ ব্যব¯
াপনা, সংখ্যাতত্ত্ব, পরিবহণ, নগরায়ণ, চিকিৎসা ইত্যাদি ভূগোলের বিষয়ে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার ফলের ভূগোলের আলোচ্য সূচির পরিধি ব্যাপক হয়েছে। উদ্ভিজ্জ,
প্রাণিজ, শিল্প, খনিজ, পরিবহণ ও যোগাযোগ ইত্যাদিও ভূগোলের আলোচ্য বিষয়। আধুনিককালের উন্নত তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ও ভূগোলের অন্তর্গত হওয়ায় বিষয়টির পরিধি বিস্তৃত হচ্ছে। শুধু তাই নয় এটি মানুষের অর্থ‣নতিক, রাজ‣নতিক, সামাজিক, ও পারিপার্শ্বিক উপর পরিবেশের প্রভাব বিশ্লেষণ করে। এছাড়া প্রতিকূল পরিবেশকে মানুষ নিজের সুবিধার্থে কীভাবে মোকাবেলা করে তারও বিস্তারিত আলোচনা ভূগোলের বিষয়। বর্তমান ভূরাজ নতিক ভূগোলের পরিধি
ও গুরুত্ব অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্ব বাণিজ্য ও যোগাযোগের ক্ষেত্রেএকটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর, ভেIগোলিক জ্ঞান এক্ষেত্রে অনেক সুবিধা দিতে পারে।

পরিবেশ বিদ্যার পরিধি
ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা


ইতোপূর্বে আমরা পরিবেশের বিভিন্ন প্রকার উপাদান সম্পর্কে জেনেছি। এসব উপাদানের প্রতিটির রয়েছে নিজ নিজ বিশেষ
ক্সবশিষ্ট্য। উপাদানগুলোর মধ্যে জনসংখ্যা, জনসম্পদ, মানুষ ও পরিবেশ, পরিবেশের ‣জব ও অ‣জব
উপাদান, প্রচলিত ও অপ্রচলিত শক্তির উৎস, বিষবিজ্ঞান (ঞড়ীরপড়ষড়মু), বায়ুদুষণ, পানিদুষণ, মৃত্তিকা দুষণ, তেজ¯িৃয়া দুষণ,
শব্দ দুষণ, আর্সেনিক দুষণ, জলবায়ু, জনস্বা, জীব-ক্সবচিত্র্য, পরিবেশ সম্পর্কিত ইত্যাদি বিষয়ক আলোচনা।


Share This

1 Response to "ভূগোলের ধারণা ও পরিবেশের ধারণা ভূগোলের পরিধি ও পরিবেশের উপাদান বর্ণনা"

Popular posts