অনার্স এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে হোয়াটস্যাপ এ যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।
অনার্স প্রথম এবং ডিগ্রী প্রথম বর্ষের নভেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরু হবে!! কাজেই যাদের ৯৯% কমন রকেট স্পেশাল সাজেশন লাগবে আজই যোগাযোগ করুন।।
Earn Free BTC

Make Money Online
অনার্স চতুর্থ বর্ষের সকল বিভাগের স্পেশাল সাজেশন রেডি আছে যাদের লাগবে যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। হোয়াটস্যাপ +8801925492441
Welcome To TopSuggestion

সমাজকর্ম কাকে বলে

 

সমাজকর্ম কাকে বলে

ভূমিকা: সমাজকর্ম মানবিক সমস্যা মোকাবিলায় একটি বহুমুখী মানোবচিত (যঁসধহরঃধৎরধহ) সাহয্যকারী পেশা। সমাজকর্ম সমাজস্থ ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির বহুমুখী সমস্যা সমাধানে জ্ঞান ও মূল্যবোধকে ভিত্তি করে কার্যকর সমাধানে প্রয়াস চালায়। বহুমুখী পেশা হিসেবে সমাজকর্ম অনুশীলনের কতগুলো বিশেষায়িত শাখা রয়েছে যা সমাজজীবনের জটিলতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বিকাশ লাভ করেছে। যেমনÑ চিকিৎসা ক্ষেত্রে সমস্যাগ্রস্তদের মনো-সামজিক সমস্যা মোকাবিলায় চিকিৎসা সমাজকর্ম গড়ে উঠেছে। এছাড়া সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্ম, বিদ্যালয় সমাজকর্ম, শিল্প সমাজকর্ম ইত্যাদি বিশেষায়িত শাখা রয়েছে। প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল এ সমাজে সামাজিক সমস্যার প্রকৃতি জটিল হওয়ার সাথে সাথে সমাজকর্মের বিশেষায়িত শাখাও সম্প্রসারিত হচ্ছে। 


সমাজকর্মের সংজ্ঞা: একটি সাহায্যকারী পেশা যা কতকগুলো পদ্বতির মাধ্যমে ব্যক্তি, দল বা সমষ্টির সমস্যা সমাধানে এমনভাবে সহায়তা করে যাতে তারা নিজেরাই নিজেদের সমস্যা সমাধানে সক্ষম হয়।

সমাজকর্ম হচ্ছে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিনির্ভর একটি সাহায্যকারী ও সক্ষমকারী পেশা, যা সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তি, দল ও সমষ্টি তথা মানুষকে এমনভাবে সাহায্য করে যাতে মানুষ তার বস্তুগত ও অবস্তুগত সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে নিজেই নিজেদের সমস্যা সমাধানে সক্ষম হয়ে উঠে। সমাজকর্ম ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির সম্পদ ও অন্তর্নিহিত শক্তিকে জাগ্রত করে এবং সমস্যা সমাধান প্রক্রিয়ায় তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে। তাই সমাজকর্মকে বসঢ়ড়বিৎরহম পেশা হিসেবে অভিহিত করা হয়। আধুনিক শিল্পসমাজের বহুমুখী ও জটিল সমস্যা মোকাবিলার জন্য সমাজকর্ম পেশার উদ্ভব হয়েছে; যদিও পেশাদার তথা আধুনিক সমাজকর্মের শিকড় প্রথিত রয়েছে পারস্পরিক সহমর্মিতা, সহানুভূতি ও ধর্মীয় অনুপ্রেরণায় পরিকল্পিত সেচ্ছাসেবী সমাজসেবা কার্যক্রম ও প্রচেষ্টার মধ্যে। সমাজকর্ম একটি বিজ্ঞান ও কলা, যা ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির সমস্যা মোকাবিলায় বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিনির্ভর প্রাতিষ্ঠানিক ও পেশাগত কর্মকাণ্ড পরিচলিত করে। শিল্পভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা জটিল থেকে জটিলতর হওয়ার প্রেক্ষাপটে সমাজকর্ম পেশার আবির্ভাব হয়েছে। সমাজকর্ম সামাজিক বিজ্ঞানের একটি গুরুত্বপূর্ণ শাখা যার সূচনা ও বিকাশ একদিনে হয়নি। বস্তুত সর্বজনীন মানবমর্যাদা ও মানবাধিকারকে সমুন্নত রেখে মানবকল্যাণ নিশ্চিতকরণ প্রচেষ্টার একটি অংশ হিসেবে সমাজবিজ্ঞান, মনোবিজ্ঞান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, অর্থনীতি, নৃ-বিজ্ঞান, মনোচিকিৎসাসহ বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার জ্ঞান ও দক্ষতার সমন্বয়ে সমাজকর্ম একটি সমন্বিত ব্যবহারিক সামাজিক বিজ্ঞান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। শিল্পবিপ্লবোত্তর সময়ে মানুষের জীবনযাত্রার সামাজিক ও অর্থনৈতিক গতিশীলতার পাশাপাশি সৃষ্টি হয় মনো-সামাজিক সংকট ও সমস্যা। এই সংকট ও সমস্যা ক্রমেই জটিল আকার ধারণ করলে প্রচলিত সমাজকল্যাণ ও সমাজসেবা অপ্রতুল, অপর্যাপ্ত ও অকার্যকর হয়ে উঠে। এই প্রেক্ষাপটে নতুনভাবে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিনির্ভর সাহায্য ও সেবামূলক ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এর ফলশ্রুতিতে বৈজ্ঞানিক জ্ঞান ও দক্ষতা নির্ভর পেশাগত কর্মকাণ্ড হিসেবে সমাজকর্মের সূচনা হয়। ইংল্যান্ডে সর্বপ্রথম সমাজকর্মের সূত্রপাত হলেও আমেরিকায় পেশাদার সমাজকর্মের ধারণা, পদ্ধতি ও কৌশল পূর্ণতা লাভ করেছে। 


উপসংহার: শিল্পবিপ্লবোত্তর আধুনিক শিল্পসমাজের জটিল সমস্যার বিজ্ঞানভিত্তিক সমাধানের প্রয়াসে সমাজকর্ম ধারণার উদ্ভব ও বিকাশ ঘটে। সমাজকর্ম মূলত একটি ব্যবহারিক সামাজিক বিজ্ঞান যা সাহায্যকারী ও সক্ষমকারী মানবহিতৈষী পেশাগত সেবাকর্ম হিসেবে ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির সমস্যা সমাধানে বস্তুগত ও অবস্তুগত সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের যাথাযথ সামাজিক ভূমিকা পালনে সক্ষম করে তোলে।

Share This

0 Response to "সমাজকর্ম কাকে বলে"

Post a Comment

Popular posts