ডিগ্রী ২য় বর্ষ ২০২১ ইসলামিক স্টাডিজ ৪র্থ পত্র স্পেশাল শর্ট সাজেশন রেডি আছে নিতে চাইলে ম্যাসেজ করুন। হেল্পলাইন নম্বর: ০১৯৩৩০৮৯৬৪৯
Welcome To TopSuggestion

ডিগ্রি /অনার্স /প্র.অনার্সের ভর্তি বাতিল প্রক্রিয়া


 

ভর্তি বাতিল আপনি যেকোন সময়ে করতে পারেন।বর্তমানে ১টি এবং ১টি মাত্র প্রক্রিয়াতে ভর্তি বাতিল করা যায়। সেটা হলো অনলাইনের মাধ্যমে। কলেজের মাধ্যমে করতে পারেন তবে কলেজ আপনার ভর্তি ঐ অনলাইনের মাধ্যমে করে দিবে। পার্থক্যটা হলো মাধ্যমের।এই আরকি।

অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি বাতিল করতে যা যা করণীয়ঃ

প্রথম_ধাপ

১। স্টুডেন্ট আইডি।

রেজিঃনম্বর অথবা প্রাথমিক আবেদনের সময় ফরমে যে রোল নম্বর ছিল তা ব্যবহার করে একটি স্টুডেন্ট আইডি খুলবেন এবং যথাযথ তথ্য দিয়ে কাজ সমাপ্ত করবেন।gmail id লাগবে ২/৩ তিন দিন পরে gmail notification আসবে বাকী সকল তথ্য দিয়ে ভর্তি বার্তিল করার জন্য জিমেল একটা লিং পাটাবে সেই লিংকে ডুকে বাকী সব তথ্য সাবমিট করতে হবে, 

২। স্টুডেন্ট আইডি খুলে এ্যাকাডেমীক সার্ভিস সিলেক্ট করে এ্যাডমিশন ক্যান্সেল সিলেক্ট করবেন।

২য়_ধাপ

৩।⤵️নিচের দিকে এ্যাটাচমমেন্ট বক্স আছে ।সেখানে ৩টা ডকুমেন্ট আপলোড করবেন। প্রত্যেক ফাইল যেন ২ এমবির উর্ধ্বে না হয়।✖️

👉যা যা এটাচ করবেনঃ

ক.👉 কলেজ ফরোয়ার্ডিং ।

ব্যাখ্যাঃডীন বরাবর অধ্যক্ষের নিকট ভর্তি বাতিল বিষয়ে দরখাস্থ লিখবেন। উক্ত দরখাস্থে প্রিন্সিপাল সাঈন কলে সীল লাগিয়ে দিলে হয়ে যাবে কলেজ ফরোয়ার্ডিং ।

খ.স্টুডেন্ট কপি।

ব্যাখ্যাঃ ভর্তির সময় অনলাইন থেকে ২টা ফরম পূরণ করে ডাউনলোড করেছিলেন। ১টা কলেজ কপি আর ১টা স্টুডেন্ট কপি। আপনাকে কলেজ স্টুডেন্ট কপি ফেরত দিয়েছে ভর্তির সময় অথবা কলেজে জমা রাখছেন। জমা রাখলে চেয়ে নিবেন।

গ. রেজিঃকার্ড ।

অনার্স বা ডিগ্রি বা প্র.অনার্সে অধ্যায়নরত রেজিঃকার্ড। যদি রেজিঃকার্ড না থাকে তবে প্রাথমিক আবেদন ফরম দিবেন। প্রাথমিক আবেদন ফরম বলতে ভর্তির জন্য আবেদন করার ফরম কে বলা হয়ছে। যা ২৫০টাকা কলেজে দিয়েছিলেন ও কলেজ কচি করে আপনাকে ১টা অংশ ফেরত দিয়ে ছিল।

🔄উক্ত ৩টা ডকুমেন্ট এটাচ করবেন আর হেডিং এর ঘরে ডকুমেন্টের নাম লিখে কনফর্ম করবেন। পে স্লিপ আসবে। প্রিন্ট আউট⤵️করে সোনালি ব্যাংকে ৭৪৬ টাকা দিবেন☢️। ৩/৭দিন মধ্যে আপনার স্টুডেন্ট আইডিতে চিঠি পাঠিয়ে দিবে।

বিঃদ্রঃ👉 করে কোন মেসেজ আসবে না ফোন। এর জন্য দিনে চারবার আইডি চেক করবেন।

বিঃদ্রঃ⚠️ ভর্তি বাতিল করতে কলেজ ১ থেকে ৩০ হাজার টাকা লাগবে। সেটা কলেজের ব্যক্তিগত বিষয়। সরকারিতে ১ হাজারেও হয় আবার বেসরকারিতে অনেক টাকা লাগে।

তাই অযথা যুক্তি উপস্থাপন করিবেন না। ✖️

বিঃদ্রঃ কলেজ ফরোয়ার্ডিং ব্যতিত ভর্তি বাতিল হবে না না এবং না। ⛔️

তাই পিয়ন বা কেরানিকে টাকা দিয়ে কাগজ পত্র তুলে লাভ নাই। 🚫

আপনি ভর্তি বাতিল নিজেও করতে পারেন, কলেজ থেকেও করাতে পারেন, কোনো কম্পিউটার কম্পোজের দোকান থেকে করাতে পারেন। 👍

কলেজ থেকে করালে অবশ্যই স্টুডেন্ট আইডি পাসোয়ার্ড ও ভর্তি বাতিলের চিঠি বুঝে নিবেন।👌

বিঃদ্র - আমাদের মতামত অনুসারে যারা ভর্তি বার্তিল করে পুনোরাই ভর্তি হবেন তারা নতুন ভর্তি আবেদন যে দিন করবেন সেই দিন ভর্তি বার্তিল জন্য আবেদন করে দিবেন আবেদন করলে ভর্তি বার্তিল হবে না,  তাই ভয় পাবার কিছু নেই,  ভর্তি বার্তিল হতে ৭/৯ দিন সময় লাগে যদি আপনার কলেজ লিস্ট আসার পরে ভর্তি বার্তিল করেন তবে ভর্তি বার্তিল হবে ঠিক কিন্তু নতুন করে কলেজে ভর্তি হতে পারবেন না করণ ভর্তি বার্তিল হতে হতে নতুন করে ভর্তি হওয়ার সময় চলে যাবে পরে বড় ধরনের সমস্যা পড়ে যাবেন,  তাই যে দিন নতুন করে আবেদন করবেন সে দিন ভর্তি বার্তিল ১ম ধাপ সম্পূন করে রাখবেন,  যখন আবার নতুন কলেজ লিস্ট নাম চলে আসবে তখন বাকী ডকুমেন্ট সাবমিট করে ৩/৪ দিনে ভর্তি বার্তিল করে দিতে পারবেন এবং নতুন করে ভর্তি সময় ও হাতে থাকবে তাই বুঝে শুনে কাজ করবেন  বুঝতে সমস্যা হলে আমাদের জানাবেন,

Share This

0 Response to "ডিগ্রি /অনার্স /প্র.অনার্সের ভর্তি বাতিল প্রক্রিয়া "

Post a Comment

Popular posts