করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা নেই।। শিক্ষামন্ত্রী।
Welcome To TopSuggestion

২০ টি গুচ্ছ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নির্দেশিকা প্রকাশিত! বিস্তারিত

🔸 প্রতি ইউনিটে পরীক্ষা দিতে পারবে ১,৫০,০০০ শিক্ষার্থী।

🔸 থাকছে সেকেন্ড টাইম।

🔸 থাকছে না বিভাগ পরিবর্তন। 

🔸প্রাথমিক আবেদন: ০১/০৪/২০২১ হতে ১৫/০৪/২০২১

🔸 প্রাথমিক আবেদনের ফলাফল প্রকাশ: ২৩/০৪/২০২১

🔸চূড়ান্ত আবেদন: ২৪/০৪/২০২১ হতে ২০/০৫/২০২১

🔸 প্রবেশপত্র ডাউনলোড: ০১/০৬/২০২১ হতে ১০/০৬/২০২১

.

আবেদনের যোগ্যতাঃ গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য ন্যূনতম যোগ্যতাও নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের মোট জিপিএর চতুর্থ বিষয় সহ ৮  ( আলাদাভাবে ৩.৫ করে)।  ব্যবসায় শিক্ষায় মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের মোট জিপিএর চতুর্থ বিষয় সহ ৭.৫ ( আলাদাভাবে ৩.৫ করে) এবং মানবিকে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের মোট জিপিএর চতুর্থ বিষয় সহ ৭। ( আলাদাভাবে ৩.৫ করে)

.

☑️আবেদন ফিঃ ৫০০৳(বিকাশ,রকেট,নগদ)

☑️পরীক্ষার তারিখঃ ০৩.০৭.২১ ( সাইন্স ইউনিট) 

মানবিক - ১৯ জুন 

বিজনেস - ২৬ জুন

☑️সেকেন্ড টাইমঃ থাকছে এবং কোন নাম্বার কাটা যাবেনা।

☑️পরীক্ষার কেন্দ্রঃ ৩১ টি,পূর্নাঙ্গ সার্কুলারে জানাবে।

☑️ পরীক্ষা পদ্ধতিঃ এমসিকিউ।১০০ টি এমসিকিউ নাম্বার থাকবে ১২০।মানে ১.২০ করে প্রতিটি প্রশ্নের জন্য।পরীক্ষার সময় ১.৩০ ঘন্টা।

কেন্দ্র-নির্ধারণী স্কোর হবে যথাক্রমে-

১) স্কুল/কলেজের অবস্থান (কেন্দ্র হতে দূরত্ব): ৪০ (সর্বোচ্চ)

২) প্রাপ্ত নম্বর (এসএসসি ও এইচএসসি): ৪০ (সর্বোচ্চ)

.

৩) পাশের বছর (২০১৯-০৫, ২০২০-১০): ১০ (সর্বোচ্চ)

৪) ছেলে/মেয়ে (ছেলে-০৫; মেয়ে-১০): ১০ (সর্বোচ্চ)

ভর্তির নির্দেশিকায় আরও বলা হয়, প্রাপ্ত স্কোর ও কেন্দ্রের পছন্দ ক্রমের ভিত্তিতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর পরীক্ষাকেন্দ্র নির্ধারণ করা হবে। নির্ধারিত পরীক্ষাকেন্দ্র পরিবর্তনের কোন সুযােগ নাই।

.

গুচ্ছ ভর্তির নির্দেশিকা প্রকাশ, ৬ সর্টিং ক্রাইটেরিয়ায় মেধাক্রম।

.

🔰সাইন্স ইউনিটের সিলেকশন লিস্ট প্রসেসঃ 

প্রতি ইউনিটে ১.৫ লক্ষ শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাবে সেই ক্ষেত্রে কিছু ক্রাইটেরিয়া দিয়ে সিলেকশন করা হবে। 

☑️ ক্রাইটেরিয়া-০১ঃ GPA(HSC 60% +SSC 40%)

☑️ ক্রাইটেরিয়া-০২ঃ MARKS(HSC 60% +SSC 40%)

☑️ক্রাইটেরিয়া-০৩ঃ PHYSICS এর এইচএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএ।

☑️ ক্রাইটেরিয়া-০৪ঃ PHYSICS এর এইচএসসিতে প্রাপ্ত নাম্বার।

☑️ক্রাইটেরিয়া-০৫ঃ CHEMISTRY এর এইচএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএ।

☑️ক্রাইটেরিয়া-০৬ঃ CHEMISTRY এর এইচএসসিতে প্রাপ্ত নাম্বার।

☑️ক্রাইটেরিয়া ১ দুজন শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে সমান হলে তাদের ক্ষেত্রে ক্রাইটেরিয়া ২ এপ্লাই হবে।২ সমান হলে ৩,এভাবে ৪,৫,৬

.

আবারো বুঝিয়ে বলছি,  

টোটাল ৬ টি ক্রাইটেরিয়াতেই একজন শিক্ষার্থীকে তারা বাচাই করবে।

✅ প্রথম ক্রাইটেরিয়া HSC GPA (60%)+SSC (40%)

✅২য় ক্রাইটেরিয়া HSC Mark(60%)+SSC(40%)

✅(৩য় -৬ষ্ঠ)ক্রাইটেরিয়া 

বিজ্ঞানঃ

Physics (GPA+ mark)

Chemistry (GPA+Mark)

মানবিকঃ

বাংলা(mark+GPA)

ইংরেজি(Mark+GPA)

বানিজ্য ঃ

বাংলা(Mark+GPA)

ইংরেজি(mark+GPA)

উদাহরণ ঃ যারা HSC রেজল্ট ভাল এবং পদার্থ,রসায়ন ভাল তারা আগে সিলেক্ট হবে।।।

#

এখনো অনেক সময় আছে , ভালোভাবে প্রিপারেশন নেও, সঠিক বই পড়। সঠিক বই না পড়ে প্রিপারেশন নিলে সেই প্রিপারেশনকে বলে " পণ্ডশ্রম "!  অর্থাৎ গাধার মত খাটতেই পারবা। বিশ্ববিদ্যালয়ে আর চান্স পাওয়া হবেনা। তাই আমি যে বইগুলো পড়তে বলছি সেগুলো পড় - 

.

★ বাংলার জন্য পড়বা " বাংলা পার্বণ "। এই বই পড়লে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাতেই তুমি আটকাবা না। বাংলাতে ১০০% প্রস্তুতি কমপ্লিট 😎

.

★ ইংরেজির জন্য পড়বা " ছায়ামঞ্চ English ". আর Vocabulary এর জন্য পড়বা " ছায়ামঞ্চ Student Vocabulary ".  এই ২ টি বই পড়লে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ধরনের ইংরেজি এর প্রিপারেশন ১০০% কমপ্লিট। অন্য বই পড়লে কোন না কোন ঘাটতি থাকবেই। হয় রিটেনে ঘাটতি থাকবে নাহয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যে ব্যতিক্রম ধরনের English আসে সেখানে ০০ পাবা। তাই অন্যসব বই বাদ দিয়ে শুধুমাত্র " ছায়ামঞ্চ English " ও " ছায়ামঞ্চ Student Vocabulary " পড়। অনেকে দেখি বোকার মত চাকরির জন্য রচিত ইংরেজি বই পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার জন্য!!!  এজন্যই প্রতিবছর ৯০% স্টুডেন্ট ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজিতে ফেইল করে। কারণ, ওসব বই চাকরির পরীক্ষার সিলেবাস অনুযায়ী রচিত। ওগুলোতে HSC ইংরেজি ১ম পত্রের ১ টা ওয়ার্ড ও নেই৷ অথচ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় HSC ইংরেজি ১ম পত্রকে বেস করে অনেক প্রশ্ন আসে, যেগুলো " ছায়ামঞ্চ English " বইয়ে আছে। এবং " ছায়ামঞ্চ Student Vocabulary " বইয়ে পুরো ইংরেজি ১ম পত্র বইয়ের Lesson ভিত্তিক Vocabulary ও আছে। এগুলো থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় হুবহু কমন পাবা।  চাকরির জন্য রচিত ইংরেজি বইগুলোতে Written Part ও নেই, অথচ ঢাবিতে রিটেন আসবে। " ছায়ামঞ্চ English " তো ইংরেজি রিটেনের জন্য বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান বই৷ তাছাড়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যতিক্রমধর্মী ইংরেজি আসে সেগুলো শুধুমাত্র " ছায়ামঞ্চ English " বইয়েই আছে৷ সুতরাং, অন্যসব বই বাদ দিয়ে শুধুমাত্র " ছায়ামঞ্চ English " ও " ছায়ামঞ্চ Student Vocabulary " পড়।

.

★ ICT নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নাই। " ছায়ামঞ্চ ICT SUMMIT " টা পড়।

.

বিগত বছরের প্রশ্ন সলভ করবা " সামিট ভার্সিটি সলুশন " থেকে। এক বইয়েই সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নব্যাংক। 

.

সাইন্সের স্টুডেন্টরা " সাইন্স সামিট " বইটা অবশ্যই পড়বা। এক বইয়েই সব 😍 সকল সাবজেক্ট এর সাজেশন + মডেল টেস্ট + সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নব্যাংক 😍

.

বিজনেস স্টাডিজ এর স্টুডেন্টরা " ছায়ামঞ্চ বিজনেস সামিট " বইটা অবশ্যই পড়বা " এক বইয়েই বিজনেস স্টাডিজ এর সকল বিষয়।  

.

প্রতি আসনে কতজন লড়াই করবে , সিট কত তা নিয়ে না ভেবে ভাবো তোমার প্রয়োজন মাত্র ১ টা সিট । ভাবো , " যদি ১ জন চান্স পায় সেই ১ জন হবো আমি " । আত্মবিশ্বাস ই যদি তোমার না থাকে তুমি চান্স পাবা কি করে ? নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখো , বিশ্বাস রাখো সৃষ্টিকর্তার উপর । আর আমি যেই বইগুলো পড়তে বললাম সেগুলো পড়। ইনশাআল্লাহ , সফল হবা । শুভকামনা রইলো  

Share This

0 Response to "২০ টি গুচ্ছ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নির্দেশিকা প্রকাশিত! বিস্তারিত"

Post a Comment

Popular posts