করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা নেই।। শিক্ষামন্ত্রী।
Welcome To TopSuggestion

প্রশ্নঃ মার্কিন সিনেট বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ- বলার কারণসমূহ আলােচনা কর।

 প্রশ্নঃ মার্কিন সিনেট বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ- বলার কারণসমূহ আলােচনা কর। 

 অথবা, মার্কিন সিনেটকে কেন বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ বলা হয়? আলােচনা কর।

অথবা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটকে তুমি কি বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ বলে মনে কর? তােমার উত্তরে সপক্ষে যুক্তি দাও।

   অথবা, মার্কিন সিনেটের ক্ষমতা উল্লেখ কর।



উত্তর ভূমিকা : মার্কিন আইনসভা কংগ্রেসের উচ্চকক্ষের নাম সিনেট। এ কক্ষকে অঙ্গরাজ্যসমূহের প্রতিনিধিত্বমূলক কক্ষও বলা হয়ে থাকে। মার্কিন সিনেট প্রতিনিধি সভার তুলনায় অধিক শক্তিশালী। শুধু তাই নয়, মার্কিন সিনেট বিশ্বের অন্যান্য দেশের দ্বিতীয় কক্ষের তুলনায় অধিক ক্ষমতাশালী। তাই মার্কিন সিনেটকে পৃথিবীর সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ বলা হয়।

বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ হিসেবে সিনেট : সিনেটকে বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ বলার কারণসমূহ নিম্নে উল্লেখ করা হলাে

১. আইন প্রণয়নের ক্ষেত্রে : রাশিয়া ও সুইজারল্যান্ডের আইনসভার উভয় কক্ষ সমক্ষমতাসম্পন্ন। ভারত ও ব্রিটেনের উচ্চ কক্ষ নিম্নকক্ষ অপেক্ষা দুর্বল। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ কক্ষ সিনেট নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি সভার চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। এছাড়া অর্থবিলের উপর সিনেটের যে ক্ষমতা রয়েছে ভারত, ব্রিটেন এবং আরও অনেক রাষ্ট্রের উচ্চ কক্ষের সেরূপ ক্ষমতা নেই। এজন্য J. P. Harris বলেছেন, "The United States senate is by all odds the most powerful upper chamber of any legislature in the world.

২"প্রশাসনিক ক্ষেত্রে ; ভারত ও ব্রিটেনের সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা আইনসভার নিয্কক্ষের হাতে ন্যস্ত। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সিনেট রাষ্ট্রপতি কর্তৃক কোন নিয়ােগ বৈদেশিক চুক্তি অনুমােদন না করলে তা কার্যকরী হয় না। অন্য কোন দেশের দ্বিতীয় কক্ষকে এবৰূপ ক্ষমতা দেয়া হয় নি। 

৩. বিচারের ক্ষেত্রে : সিনেট প্রতিনিধি সভা কর্তৃক অভিযুক্ত ব্যক্তিদের অভিযােগ অনুসন্ধান ও বিচার করে থাকেন।

কি ভারতের উচ্চ কক্ষ অভিযােগ আনলে নিম্নকক্ষ তার বিচার করে। সুতরাং সিনেটের বিচার সংক্রান্ত ক্ষমতা তারতের উক্ত  তুলনায় অনেক বেশি।

৪. বিভিন্ন বিল উত্থাপনের ক্ষেত্রে কানাডায় রাজনৈতিক ব্যবস্থা একমাত্র অর্থবিলই সিনেটে উপাপিত হয়। এছাড়া যে কোনাে বি সিনেট ছাড়া কমন্সসভায় উত্থাপিত হতে পারে। কানাডার সিনেটের সদস্যগণ গভর্নর জেনারেল কর্তৃক মনােনীত হন। অন্যদিকে, কমন্সসভার সদস্যগণ জনগণের দ্বারা নির্বাচিত প্রতিনিধি। এক্ষেত্রে সিনেটের ক্ষমতা কমপসভার চেয়ে অনেক কম। এদিক থেকে কানাডার সিনেট অপেক্ষা মার্কিন সিনেট অনেক বেশি শক্তিশালী। তাই মার্কিন সিনেটকে বিশ্বের সর্বাপেক্ষা দ্বিতীয় শক্তিশালী কক্ষ বলা যায়।

৫. মর্যাদার দিক থেকে : অস্ট্রেলিয়ার আইনসভার ক্ষেত্রে সাধারণ বিলগুলাে এমনকি অর্থবিলও প্রতিনিধি সভায় উথাপিত হয়। অস্ট্রেলিয়ার সিনেটের নিয়ােগ ও চুক্তি সংক্রান্ত বিষয়ে কোন ক্ষমতা নেই। উভয় কক্ষের মধ্যে মতপার্থক্য দেখা দিলে গর্ভনর জেনারেল উভয় কক্ষ ভেঙে দিয়ে পুনরায় নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে পারেন। এক্ষেত্রে সিনেটের তুলনায় প্রতিনিধি সভার সদস্য সংখ্যা বেশি হওয়ায় তাদেরই জয় হয়। কিন্তু এদিক থেকে অস্ট্রেলিয়ার সিনেট অপেক্ষা মার্কিন সিনেট অনেক বেশি শক্তিশালী। তাই মার্কিন সিনেটকে বিশ্বের সর্বাপেক্ষা দ্বিতীয় শক্তিশালী কক্ষ হিসেবে অভিহিত করা যায়।

উপসংহার : উপযুক্ত আলােচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসের উচ্চ কক্ষ সিনেট একটি শক্তিশালী কক্ষ। তাছাড়া বিভিন্ন দেশের উচ্চ কক্ষের সাথে তুলনামূলক আলােচনাতে দেখা যায় যে, সিনেট বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ। এ কারণে Prof. C. F. Strong বলেছেন, "The powers of the senate are very great probably no second chamber in the world today has an influence so real and direct সুতরাং সিনেটকে বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ হিসেবে অভিহিত করা যায়।

Share This

0 Response to "প্রশ্নঃ মার্কিন সিনেট বিশ্বের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী দ্বিতীয় কক্ষ- বলার কারণসমূহ আলােচনা কর। "

Post a Comment

Popular posts